তজুমদ্দিনে আবারো বাল্যবিয়ের বলি গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধুর আত্মহত্যা।

প্রকাশিত: ১০:৩৭ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৪, ২০২১

সাইফুল ইসলাম সাকিব স্টাফ রিপোর্টার।

ভোলার তজুমদ্দিনের শম্ভুপুর ইউনিয়নের গোলকপুর ৪ নং ওয়ার্ড এক অথই চক্রবর্তী (১৪) নামের এক গৃহবধু গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সুরতাহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করেছে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার ময়না তদন্তের জন্য লাশ ভোলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হবে। এনিয়ে বাল্যবিয়ের বলি হয় তজুমদ্দিনে গত দুই মাসে অন্তত চার জন্য আত্মহত্যা পথ বেছে নিয়েছে।

থানা ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, অথইর শ্বশুর রনজিত চক্রবর্তী ও তার স্ত্রী বুধবার বিকেলে মাঠে কাজ করতে যায়। তারা সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরে দেখে ঘরের দরজা বন্ধ। ডাকাডাকির পরও কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে স্থানীয়রা মিলে দড়জা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে করে দেখেন অথইর ঝুলন্ত লাশ। পরে খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে। অথই রনজিত চক্রবর্তীর ছেলে সুজনের স্ত্রী। পাশ্ববর্তী শম্ভুপুর গ্রামের যাদব চক্রবর্তীর মেয়ে অথই চক্রবর্তীর সাথে ৭-৮ মাস আগে তাদের বিয়ে হয়। সুজন ঢাকায় কর্মরত থাকায় অথই শ্বশুর শাশুড়ীকে নিয়ে একসাথে বসবাস করতো। আত্মহত্যার সঠিক কারন এখনো জানা যায়নি।
তবে স্থানীয় একটি সুত্র দাবী করেছে, প্রায়ই মোবাইল ফোনে কথা বলার সুত্র ধরে শ্বশুর ও শাশুড়ি অথইকে বকাবকি করে। অপরদিকে নাম প্রকাশ না করা শর্তে স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, এটি বাল্যবিয়ের একটি করুন পরিনতি এটি। বিয়েতে মেয়ের সম্মতি না থাকায় স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ির সাথে মনোমালিন্য ছিলো। এর সুত্র ধরে অথবা কারো প্ররোচনায় মেয়েটি আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে পারে বলে দাবী ও-ই সুত্রের। মেয়েটি ২০১৯ সালে গোলকপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে সমাপনি পরীক্ষায় পাশ করে বলে জানা গেছে।