🌹তরুণদের স্বপ্ন দেখায় ভিক্টোরিয়া ই-কমার্স প্লাটফর্ম🌹

প্রকাশিত: ১২:৫২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৭, ২০২১

আমি আরিফ হোসাইন।। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অজিতগুহ কলেজের বাংলা ২য় বর্ষের ছাত্র।।
গ্রাম-করপাতি,জোড্ডা ইউনিয়ন, নাঙ্গলকোট,কুমিল্লা।

বাবা-রকিব উদ্দিন(কৃষক)
মাতা-কাজল রেখা(গৃহিনী)

করোনা মহামারী আসার কারণে পুরো পৃথিবীর মতো আমাদের পরিবার ও বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে।।আমরা জোৎ পরিবার,,,বাবা মা বাড়ীতে থাকে,,,চাচা বিদেশে থাকার সুবিধায় আমি আমার বোন সহ শহরে থাকি।।এবং পড়াশোনা করি।।
করোনায় চাচার চাকুরীর সমস্যা হওয়ায় আমরা শহর ছেড়ে বাড়ীতে চলে যাই,,এবং আমি বাবার সাথে কৃষি কাজে এবং গরুর খামার ব্যাবস্থাপনায় মনোযোগ দি।।
কিন্তুু ২ টাই আমাদের লস প্রজেক্ট আসে।।লস হওয়াতে আমার জেঠাতো ভাই আবু মাসুদ(মুকুল-লন্ডন) থেকে আমাকে একটা ব্লাক রাইস এর ছবি পাঠালো ও ভিডিও পাঠালো,,,এবং বললো এটা কোথায় পাওয়া যায়,,একটু দেখো,,অনেক খোঁজাখুঁজি করলাম পেলাম না।।
এরপর দেশ সামান্য স্বাভাবিক হওয়ার সাথে সাথে আমরা আগষ্ট মাসে শহরে এসে পড়ি।।
আগষ্টের শেষের দিকে আমার পেইজবুকে ভিক্টোরিয়া ই-কমার্স প্লাটফর্ম সামনে আসে,,তখন আমি জয়েন হয়ে নি।।এবং দেখলাম সকলেই ছাত্র,, আর তারা একেকজনে একেকটা নিয়ে কাজ করে।।তখন আমি শ্রদ্ধেয় আপন ম্যামকে বললাম ম্যাম আমি উদ্যোক্তা হবো,,,বললো হও,,সবাই তো হচ্ছে,,তুমি ও হও।।তখন আমি অনেক খোঁজলাম ইউনিক কিছু পেলাম না,,,হঠাৎ আমার ব্লাক রাইস এর কথা মনে পড়লো এবং তিবরানী ম্যামকে সাথে সাথে বললাম।।আমাকে একটু সাহায্য সহযোগিতা করেন।।তখন বললো বলো,,কি করতে পারি।।আমি বললাম,,আমাকে আপনি ব্লাক রাইস বীজ সংগ্রহ করে দিন। তারপর ম্যাম বিভিন্ন কৃষি কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে আমাকে তাদের নাম্বার দেয়,,এবং আমি সংগ্রহ করি।।এই সব সময়ের ভিতরে আমি দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ব্লাক রাইস সংগ্রহ করে ২০০৳ প্রতি কেজি বিক্রি করি।।এগুলোর সাথে আমার সরিষার তৈল,লাল চিনি, মধু এবং নিরাপদ কিছু খাদ্য নিয়ে ৮ মাসে মোট সেল -২+ লাখ টাকা।।
তাছাড়া এখন আমি নিজে ব্লাক রাইস ধান উৎপাদন করে চাল সরবরাহ করি।।আলহামদুলিল্লাহ,,, আমি যথেষ্ট সাড়া পাচ্ছি।।
এখন আমার মোট ৪+ একর কৃষি জমিতে বোরো(ইরি) ধান আছে।।
এর মধ্যে ব্লাক রাইস(কালো চাউল),বেগুনি ধান(বঙ্গবন্ধু বা মুজিব ধান), হীরা -১৯,হীরা-২,ময়না,মিনিকেট,বিন্নি ধান ইত্যাদি।।

👉ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা-ভবিষ্যৎ তে আমি একজন কৃষি উদ্যোক্তা হবো,,কৃষিকে নিয়ে গবেষণা করবো।।বাংলাদেশের কৃষি সারাবিশ্বের সামনে তুলে ধরবো।।ইনশাআল্লাহ।এবং দেশের ৩-৫ কোটি লোক ডায়বেটিস এবং ক্যান্সার রোগে ভুগছে,,আমি তাদের প্রত্যেকের কাছে আগামী ২-১ বছরের মধ্যে ব্লাক রাইস তাদের আহার হিসেবে তুলে দিতে চাই,,ব্লাক রাইসটি ডায়বেটিস, ক্যান্সার সহ ২০ + রোগের উপকার করে।।
এবং ৫ টি ফলের বাগান(মাল্টা, এ্যাবোকাডো,রামবুটান) করবো।।আমার এই পথে আসার কারণ হলো শিক্ষিত,বেকার যুবকরা যেনো চাকুরীর পিছনে না ঘুরে নিজেকে নিজে স্বাবলম্বী করে তুলতে পারে।।এবং আমি বিশ্বাস করি,,আগামী ২-৩ বছর পর আমি আমার কৃষিতে ১০-১৫ জনের কর্মসংস্থান তৈরী করে দিতে পারবো।।

স্বত্বাধিকারী -নিরাপদ খাদ্য ভান্ডার।।।
মোবাইল নাম্বার-01630230884