আদালতের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার আদেশে সন্তোষ প্রকাশ করেন ভোলার সাংবাদিকরা

প্রকাশিত: ৭:২২ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২, ২০২১

সিমা বেগম, ভোলাঃ

ভোলা প্রেসক্লাবের নির্বাচনের ২০ দিন পর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া ৬ জনের (যাদের নিয়্গোপত্র নেই) দায়ের করা নিষেধাজ্ঞা মামলা সোমবার শুনানী শেষে আদালত বাতিল করে দিয়েছেন। এই আদেশে সন্তোষ প্রকাশ করেন ভোলার সাংবাদিকরা। ৩০ নভেম্বর ছিল প্রেসক্লাবের নির্বাচন । ওই নির্বাচনে ১১টি পদে ২১ জন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র ক্রয় করেন। সহসভাপতি পদে দুই জন মনোনয়নপত্র জমা দেন নি। সাধারন সম্পাদক পদে একজন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন। ক্রীড়া ও পাঠাগার সম্পাদক পদে একজন করে মনোনয়নপত্র জমা দেন। মনোনয়নপত্রের সঙ্গে সাংবাদিকতার নিয়োগপত্র ও প্রেসক্লাবের সদস্য চাঁদা পরিশোধ না থাকায় ৭ জনের মনোনয়নপত্র বাছাইকালে বাতিল করেন নির্বাচন কমিশন। এরা হচ্ছেন সামস উল আলম মিঠু, নজরুল হক অনু, আল-আমিন

শাহরিয়ার, ওমর ফারুক, হারুন অর রশিদ, শিমুল চৌধুরী, মোঃ মিজানুর রহমান । ৩০ নভেম্বর বিকালে নির্বাচন কমিশন আনুষ্ঠানিকভাবে ১১ জনের নির্বাহী পরিষদের নাম ঘোষনা করেন। ফলাফল ঘোষনা শেষে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। ৩ জানুয়ারি কার্য নির্বাহী পরিষদের প্রথম সভায় ওই কমিটি আগামী দুই বছরের জন্য কর্ম-পরিকল্পনা ঘোষনা করেন। স্বাভাবিক নিয়মে যখন নির্বাচিত কমিটি দায়িত্ব পালন করছিলেন। ২০ জানুয়ারি প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য সাবেক মন্ত্রী ভোলার অভিভাবক তোফায়েল আহমেদের সহধর্মিনী আনোয়ারা আহমেদেও সুস্থতা কামনায় প্রেসক্লাবের আয়োজনে আলিম সমাজকে নিয়ে দোয়া অনুষ্ঠান চলছিল ওই দিন মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়াদের মধ্যে ৬ জন পূনরায় নির্বাচন দাবি করে মামলা করেন আদালতে। একই সঙ্গে বর্তমান কমিটির কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য আদালতে নিষেজ্ঞা চান। এ নিয়ে বিব্রত হন প্রকৃত সাংবাদিকরা। ১ জানুয়ারি সোমবার বর্তমান কমিটির পক্ষে ভোলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সিনিয়র আইনজীবী ছালাউদ্দিন হাওলাদার, আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ও প্রেসক্লাব নির্বাচন পরিচালনা পরিষদের সদস্য এডভোকেট নুরুল আমিন নুরন্নবী , সিনিয়র আইনজীবী এডভোকেট রবীন্দ্র নাথ দে, আইনজীবী অরিফুর রহমানসহ ১৫জন আইনজীবী অবস্থান নিয়ে শুনানীতে অংশ নেন। এ সময় বিজ্ঞ আইনজীবীরা প্রমানপত্র তুলে ধরে জানান, ঐতিহ্যবাহী ভোলা প্রসক্লাব পরিচালিত হবে প্রকৃত সাংবাদিকদের দ্বারা। যারা সাংবাদিকতায় নেই, যাদের নিয়োগপত্র নেই , যারা সদস্য চাঁদা পরিশোধ করেন না , তারা প্রেসক্লাব পরিচালনায় থাকতে পারেন না। তারা পরিবেশ বিনষ্ট করতে এই মামলা দায়ের করেন। বাদি পক্ষের আইনজীবী এডভোকেট আমিরুল ইসলাম বাছেত তাদেও পক্ষে সাফাই বক্তব্য দেন। আদালত উভয় পক্ষের আইনজীবীদেও বক্তব্য শুনে পর্যালোচনা শেষে রায় প্রদান করেন। এ সময় বাদী পক্ষের এ্যাডব কমিটি গঠনের প্রস্তাবও বাতিল করে আদালত । এই আদেশে সন্তোষ প্রকাশ করেন ভোলার প্রকৃত সাংবাদিকরা।