লালমোহনে রাতের আঁধারে শিশুকে হত্যা করার চেষ্টা।

প্রকাশিত: ১০:৪৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০২১

লালমোহন প্রতিনিধিঃ

ভোলা লালমোহন উপজেলার চরভুতা ইউনিয়নের তানজিদ(১১) নামে এক শিশুকে রাতের আধারে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ।

ঘটনাটি ঘটে লালমোহন ২নং ইউনিয়নের দ্বীপবন্ধু বাজারে মারুফ এর মোবাইল সার্ভিসিংয়ের দোকানে। ভুক্তভোগী তানজিদ বলেন, আমি চরভুতা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের আব্দুল বারেক মুন্সিবাড়ির নুরুল আমিন এর ছেলে তানজিদ (১১) আমি মারুফের দোকানে রাতে মোবাইল সার্ভিসিং এর কাজ করতে যাই মারুফের মোবাইল সার্ভিসিং এর দোকানে। স্থানীয় মাকসুদ মেলেটারি বাড়ির নাসির উদ্দিনের ছেলে তারেক(১৯) নামে একজন কর্মচারী মোবাইল সার্ভিসিং করে দেয়। পরে টাকা নিয়ে কিছু কথা কাটাকাটির মাধ্যমে কর্মচারী তারেক আমার গলা টিপে একটি খুঁটির সাথে তার মাথায় আঘাত করে এর পরে আমাকে উপর থেকে মাটিতে ফেলে দেয় এতে আমি অজ্ঞান হয়ে যাই। তার পরে কি হয়েছে আমি বলতে পারিনি। স্থানীয় ব্যাক্তিরা জানান, কর্মচারী তারেক তাকে চিকিৎসার কথা বলে ভুক্তভোগী তানজিদ কে হাসপাতালে নেওয়ার জন্য রওনা হয়। কিছুক্ষণ পরে তারেক তাকে মৃত মনে করে স্থানীয় প্রতিবেশী আলমগীর এর নবনির্মিত বাসার কাছে একটি সুপারি বাগানে ফেলে যায়। গভীর রাতে ভুক্তভোগী তানজিদ এর জ্ঞান ফিরলে তার ডাক চিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে আসে এবং তানজিদ এর বাবা নুরুল আমিন কে খবর দেয়। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য লালমোহন উপজেলা হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এই সম্পর্কে দোকানের মালিক মারুফ এর কাছে জানতে চাইলে মারুফ বলেন, আমি রাতে দোকানে ছিলাম না পরে এ বিষয়ে জানতে পারলাম। তখন আমি আমার কর্মচারী তারেক এর কাছে ফোন দিই তারেক বলে তানজিদকে নিয়ে সে চিকিৎসার জন্য ফুলবাগিচা হাসপাতালে নেওয়া হয়। কিন্তু ফুল বাগিচায় কোন হাসপাতালে নেই।

স্থানীয় নবনির্মিত আলমগীর এর বাসার সুপারি বাগানে তানজিদ কে পাওয়া গেলে, আলমগীর জানান তারেক বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অপকর্ম করে বেড়ায়। সে আমাকে ফাঁসানোর জন্য তানজিদকে মৃত মনে করে আমার নবনির্মিত বাসার কাছের বাগানে ফেলে যায়। অভিযুক্ত তারেক কেন আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করেছে আমি প্রশাসনের কাছে এর সঠিক বিচারের দাবি জানাচ্ছি।

এই ব্যাপারে অভিযুক্ত তারেক এর কাছে জানতে চাইলে, তার মুঠোফোনে অনেক চেষ্টা করেও তারেক কে পাওয়া যায়নি।

এই ব্যাপারে ভুক্তভোগী তানজিদ এর বাবা নুরুল আমিন বলেন, আমি এর ন্যায় বিচারের দাবিতে লালমোহন থানায় লিখিত অভিযোগ করি।