লালমোহনের ৩ মুক্তিযোদ্ধাকে বিজয় দিবস সম্মাননা দিয়েছে বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং এসোসিয়েশন ভোলা

প্রকাশিত: ৮:১১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৬, ২০২০
রিপন শান
————–
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে ভোলার লালমোহনে একটি ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠান উপহার দিয়েছে- বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং এসোসিয়েশন ভোলা জেলা শাখা ।
জীবিত দুই জন মুক্তিযোদ্ধা এবং একজন  মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীকে সংবর্ধনা দিয়েছে সংগঠনটি ।
আজ ১৬ ডিসেম্বর ২০২০ লালমোহন হাসপাতাল রোডস্হ কাশফুল চাইনিজ রেস্তোরাঁয় অনুষ্ঠিত হয় এই সম্মাননা আয়োজন। বিজয় দিবস সম্মাননা পেয়েছেন- বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, বীরমুক্তিযোদ্ধা শাহাবুদ্দিন ভূঁইয়া এবং শহীদ ল্যান্স নায়েক জামাল উদ্দিন আহমেদ এর সহধর্মিণী বেগম রওশান আরা জামাল ।
বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং এসোসিয়েশন ভোলা জেলা শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক প্রকৌশলী বোরহান মাহমুদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি চারণ করেন- লালমোহন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ গিয়াসউদ্দিন আহমেদ । বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- অস্ট্রিয়া বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের বাংলাদেশ কোঅর্ডিনেটর, ভোলা দক্ষিণ প্রেসক্লাব সভাপতি ও লালমোহন উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কবি রিপন শান । মুক্তিযুদ্ধের বিয়োগবিধুর স্মৃতি তর্পণ করেন বীরমুক্তিযোদ্ধা শাহাবুদ্দিন ভূঁইয়া ।
আয়োজক সংগঠনের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন- প্রকৌশলী মেহেদী হাসান মামুন, বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ারিং এসোসিয়েশন ভোলা জেলা শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক বোরহান মাহমুদ, আব্দুল্লাহ আল নোমান, লালমোহন উপজেলা শাখার সভাপতি মুশফিক বাবু প্রমুখ ।
অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- লালমোহন প্রেসক্লাব সভাপতি আব্দুস সাত্তার, ভোলা দক্ষিণ প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক ইউসুফ আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ সালাম সেন্টু, লালমোহন মিডিয়া ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম দুলাল, লালমোহন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি এনামুল হক রিঙ্কু প্রমুখ ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে বীরমুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ গিয়াসউদ্দিন আহমেদ বলেন- বাঙালি জাতির ইতিহাস ঐতিহ্য ও কৃষ্টি কে বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের বারবার সম্মাননা জানাতে হবে । আমাদের লালমোহনের গজারিয়াতে ভোলা জেলার মুক্তিযুদ্ধের সুত্রপাত । এই প্রজন্মের অনেকেই তা জানেনা । একাত্তরে জীবনবাজি রেখে যুদ্ধ করেছি , আজকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সম্মানিত হচ্ছি- এটা একটা পরম পাওয়া ।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কবি কণ্ঠশিল্পী রিপন শান বলেন- আমার ভাষাসংগ্রামী দাদা মাওলানা মনসুর আহমাদ গোল্ডমেডেলিস্টের  ৫ ছেলে সন্তানের ৩ জন ই  রণাঙ্গনের অদম্য মুক্তিযোদ্ধা । চাচা ল্যান্স নায়েক জামাল উদ্দিন দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছেন, বাবা সালাউদ্দিন মিয়া চট্টগ্রামের রণাঙ্গনে পাহাড়ে সমতলে গেরিলা বাহিনী নিয়ে বিপুল বিক্রমে যুদ্ধ করেছেন । ভাই হারিয়েছেন বন্ধু হারিয়েছেন, দেশ স্বাধীন করে তবেই ঘরে ফিরেছেন । আজ যেসব অপশক্তি মুক্তিযোদ্ধাকে অপমান করছেন, সম্পত্তি দখল করছেন, সংগঠন ছিনতাই করছেন, মনে রাখবেন তাদের জন্যে আসছে কঠিন দিন ।বীরমুক্তিযোদ্ধাদের অদম্য সন্তানেরা মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের কোনো প্রকার অন্যায় বরদাস্ত করবে না ।