আমি সেই সাংবাদিক

প্রকাশিত: ৮:১৫ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২৪, ২০২০

কবি
মোঃ সাইফুল ইসলাম আকাশ

আমি সেই সাংবাদিক জিবনের ঝুঁকি আছে জেনে ও মৃত্যু পথের যাত্রী হয়ে সন্ত্রাসীদের পিছে পিছে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ সংগ্রহের জন‍্য রাতের আধারে পথ চলি।

আমি সেই সাংবাদিক হারিয়ে যাওয়া সন্তানকে বাবার বুকে ফিরিয়ে দিয়ে বাবার যন্ত্রণা লাগব করি।

আমি সেই সাংবাদিক প্রাকৃতিক দুর্যোগ আর বন‍্যার ভয়াল থাবা থেকে মানুষকে বাচাঁতে রাত-দিন পরিশ্রম করে তাদের বাসস্থান এর ব‍্যবস্থা করি।

আমি সেই সাংবাদিক করোনা ভয়ে যখন লাশের আশে পাশে তার জন্মদাতা পিতামাতা আসে না আমি সেই লাশের দাফন করি।

আমি করোনা আক্রান্ত রোগীর বাড়িতে বাড়িতে ঘুরে লকডাউন ,হোমকরেন্টিন, নিশ্চিত হয়েছে কিনা! সেই সংবাদ সংগ্রহ করা সাংবাদিক।

আমি সেই সাংবাদিক যারা দেশের এই ক্রান্তিলগ্ন সময়ে অসহায় মানুষের চাউল, ডাউল, তেল, চুরি করে তাদের শাস্তির আওতায় আনতে জিবনের ঝুঁকি নিয়ে হুমকির মুখে পরে সংবাদ সংগ্রহ করি ৷

আমি সেই সাংবাদিক সন্তানের হাতে নির্যাতনের স্বীকার হয়ে রাস্তায় ফেলে আসা মাকে বাড়ি ফিরিয়ে এনে মায়ের থাকার ব্যবস্থা নিশ্চিত করি।

আমি সেই সাংবাদিক ৭০ বছরের বৃদ্ধাকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যাওয়া অপরাধীকে আইনের আওতায় আনতে অপরাধীর পিছে পিছে ছুটি।

আমি সেই সাংবাদিক বিশ্বের এই ক্লান্তিলগ্নে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনার মোকাবেলা করে যাচ্ছি।

যখন মৃত্যুর মিছিল শুরু হয়েছে, মানুষ পালিয়ে যাচ্ছে লাশ দেখে,তখন আমি প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছি মৃত্যুর ভয় কে বুকে আলিঙ্গন না করে সংবাদ সংগ্রহ করে যাচ্ছি দিনের-পর-দিন,রাতের পর রাত।

মায়ের সাথে ফোনে কথা বলার সময় ভিডিও কলে ভেসে ওঠে মায়ের চোখে অশ্রুজল ।

মায়ের মুখে পড়ে কষ্টের ছাপ,মায়ের আঁচল দিয়ে চোখের জল মুছে বলে বাবা তুমি নিরাপদে থেকো সাবধানে থেকো।
এ কান্নার গভীরতা কতটুকু সেটা আমার জানা নেই।এমন কান্না যেন,আমি হারিয়ে যাচ্ছি পৃথিবী থেকে অনেক দূরে।
কাফনের কাপড় যেন মাথায় বাধা আছে ৷
প্রিয় মা এমনটি মনে করে, নামাজে বসে দুই হাত তুলে মুনাজাত করে চোখের অশ্রুতে ভিজে যায় দু হাত।
সৃষ্টিকর্তার কাছে তার একটাই প্রাণের দাবি আমার সন্তান যেখানে থাকুক আল্লাহ আপনি তাকে ভাল রাখুন সুস্থ রাখুন।
মায়ের এমন কান্না!সত্যি আমাকে আবেগঘন করে তুলেছে।
শিউরে উঠে যায় আমার গায়ের লোম,যখন দেখি করোনা যুদ্ধ হার মেনে একে একে সবাই চলে যাচ্ছে পৃথিবী ছেড়ে!
ভয় শুধু একটাই আমি নিজে হারিয়ে যাই, নাকি আপন কাউকে হারাই।