বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা জাতীয়করণের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান ধর্মঘট পালন

প্রকাশিত: ৭:৩৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২২, ২০২০

রণিকা বসু (মাধুরী)
বিশেষ প্রতিনিধি:

বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা জাতীয়করণের দাবিতে শিক্ষক ও শিক্ষিকাদের জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান ধর্মঘটের ৮ম দিন আজ ২২/১১/২০২০ রবিবার সকাল ১০ টার সময় শুরু হয় ধর্মঘটের কার্যক্রম। অবস্থানরত ধর্মঘটে সভাপতিত্ব করেন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব হাফেজ কাজী ফয়েজুর রহমান, প্রধান আলোচক মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান, মুফতী মাসুম বিল্লাহ,নাফিয়ী, সদস্য সচিব বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামা লীগ, সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা শাহজাহান , সহ-সভাপতি মাওলানা এবিএম আব্দুল কুদ্দুস, মাষ্টার মোঃ শওকত আলী, এবিএম নাজিম উদ্দিন,আবু মুসা ভূঁইয়া, মুহাম্মদ বশির উল্লাহ আতাহারী, হাফেজ মাহমুদ, শামসুল আলম, মোঃ ইনতাজ বিন হাকিম, মহিবুল্লাহ, আলহাজ্ব রেজাউল করিম, নাসরিন বেগম, মোঃ আল-আমিন,তবিবুর রহমান,এ,কে, আজাদ, আবুল কাসেম, শামসুল হক আনছারী, রোকনুজ্জামান, জাহিদুল ইসলাম, মাহতাব,শাহ আলম, আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন, ইব্রাহিম কামাল, সরদার কামাল,আবু তাহের, খলিলুর রহমান, নাসির উদ্দিন, মোশারফ কামাল, রেজাউল করিম, জাকির হোসেন, তোফাজ্জল হোসেন, নুরুল ইসলাম, আব্দুল আলীম,জামির, আমিরুল, এনামুল, ইসমাইল, তাজুল ইসলাম, সিদ্দিকুর রহমান, মাহমুদ, আঃ রসিদ, হাসান, জহিরুল আলম, আনোয়ার হোসেন, এস,এম, তানভীর রহমান, সজিব হোসাইন, হাসানুল বান্না,এমদাদুল হক, মনিরুজ্জামান,ওলিউল্লাহ, আব্দুল করিম, জাহাঙ্গীর আলম, আব্দুল মালেক, সেলিম রেজা, আব্দুল হান্নান, হাফিজুর রহমান,এমডি রিয়াজ উদ্দিন,আসমা খাতুন, কুলসুম,ফাহিমা, সাবিনা,মাহফুজা,হাবিবা,ওনু উল্লাহ,রিজিয়া প্রমুখ।
অবস্থানরত ধর্মঘটে উপস্থিত বক্তারা বলেন ১৯৭৮ অডিনেন্স ১৭ (২) ধারা মোতাবেক মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের শর্ত পূরণ সাপেক্ষে রেজিঃ প্রাপ্ত হয়। রেজিস্ট্রেশন হওয়ার পর থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিধি মোতাবেক কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে।১৯৯৪ইং সনে একই পরিপত্রে রেজিষ্ট্রার বেসরকারী প্রাইমারী স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষকদের বেতন ৫০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। পরবর্তীতে বিগত সরকারের সময়ে ধাপে ধাপে বেতন বৃদ্ধি হতে হতে ২০১৩ সনে ৯ জানুয়ারী বর্তমান মহাজোট সরকার ২৬১৯৩ টি বেসরকারী প্রাইমারী স্কুল জাতীয়করণ করে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ন্যায় সকাল ০৯ থেকে বিকাল ০৪ টা পর্যন্ত সরকারী একই সিলেবাসে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করা হয়, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ন্যায় ইবতেদায়ী ৫ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ন্যায় সরকারের সকল কাজে অংশগ্রহণ করে।মাস শেষে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ ২২-৩০ হাজার টাকা বেতন পায়।অথচ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকগণ কোনো বেতন পান না, তবুও তারা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ন্যায় শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।
স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকদের দাবিগুলো হলোঃ
১। প্রাইমারীর ন্যায় সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা মুজিব বর্ষে মহাসমাবেশের মাধ্যমে জাতীয়করণের ঘোষণা।
২। কোড বিহীন মাদ্রাসাগুলো বোর্ড কর্তৃক কোড নম্বরে অন্তর্ভূক্ত করণ।
৩। স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা নীতিমালা অনুযায়ী- ২০১৮ সংশোধন করে আলিম শিক্ষক ১ (এক) জনের পরিবর্তে এইচএসসি পাশ ১ (এক) জন অন্তর্ভূক্ত করণ।
৪। প্রাইমারীর ন্যায় অফিস সহায়ক নিয়োগ।
৫। প্রাইমারীর ন্যায় শিক্ষকদেরকে পিটিআই ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করণ।
৬। প্রাইমারীর ন্যায় আসবাবপত্র সহ ভবন নির্মাণ।
৭। এবং প্রাইমারীর ন্যায় সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা স্থায়ী রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করণ।
উপস্থিত সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক ও শিক্ষিকাগণ তাদের ন্যায্য দাবি চান। এবং ব্যানারে লিখে দাবিগুলো তুলে ধরেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা আমাদের শিক্ষকদের বেতন দেন না হলে বিষ দেন। হাজারো স্লোগানের মধ্য দিয়ে তাদের বিগত ৩৬ বছর বিনা বেতনে শিক্ষাদানের দাবিগুলো তুলে ধরেন। তাদের একটাই দাবি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেন তাদের দাবিগুলো মেনে নিয়ে সকল শিক্ষকদের দুঃখের দিন শেষ করেন।
প্রেসক্লাবের প্রাঙ্গণ হতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অভিমুখে পদযাত্রা ও মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদানকৃত ব্যানার নিয়ে শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়।