দুর্গাপুরে অবৈধ ব্যবসা করেই মেয়র হতে চায় বিতর্কিত আলমগীর

প্রকাশিত: ৯:২২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০২০

লিয়াকত হোসেন রাজশাহী ব্যুরোঃ রাজশাহীর দুর্গাপুরে অবৈধ ব্যবসার আড়ালে মেয়র হতে চাই বিতর্কিত আলমগীর শ্বপ্ন দেখছেন পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের হরিপুর গ্রামের আবুল জেলের ছেলে আলমগীর।

দুর্গাপুর উপজেলার চৌপুকুরিয়া গ্রামের মৃত রহিমের অবৈধ পলিথিন কারখানা ও প্লাস্টিক কারখানার অন্তরালের মালিকানা করেন এই আলমগীর। তার নির্বাচনী প্রচারনায় থমকে গেছে দুর্গাপুর পৌরবাসী। অনেকেই বলাবলি করছেন এমন আতংক বাজ অবৈধ ব্যবসার মুল হোতা যদি মেয়র নির্বাচনী প্রচারনা চালায় তাহলে সরকারের সুনাম নষ্ট সহ বিরুপ প্রতিক্রিয়া পড়তে পারে দুর্গাপুরের রাজনীতিতে।

স্থানীয়রা জানান এই আলমগীর কিছুদিন পূর্বে নারী কেলেঙ্কারীর দ্বায়ে দুর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিকের হাতেও লাঞ্চিত হয়েছে। দুর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের একজন সদস্য জানান আতিক ভাই সকল সময় অন্যায়ের প্রতিবাদ করে থাকেন, আর তিনি আলমগীরের একাধিক অপরাধের তথ্য প্রমান নিয়েই তাকে বারন করতে গিয়ে এমন ঘটনার সৃস্টি হয়েছিল।

দুর্গাপুর উপজেলার চৌপুকুরিয়া গ্রামের সেই পলিথিন ও প্লাস্টিক কারখানার সন্ধান পেয়ে রাজশাহী র‌্যাব ৫ এর একটি দল কিছুদিন পূর্বে একটি অভিযান পরিচালনা করেন সেখানে নগদ অর্থ দন্ড সহ একাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করেন র‌্যাব সদস্যরা। সেখানেও বিভিন্ন ভাবে তদবির করার চেষ্টা করেন এই আলমগীর। দুর্গাপুর থানা পুলিশের একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান এই আলমগীর থানার দালাল হিসেবে এই অঞ্চলে পরিচিত। তার বিরুদ্ধে সরকারি পুকুর জায়গা দখল সহ ডজন অভিযোগ রয়েছে তার উপর।

দুর্গাপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের একজন পদধারি ব্যক্তি বলেন তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ এরই মাঝে আমরা উপর মহলে পাঠিয়েছি। তার জবর দখলের কিছু নথিও সেখানে রয়েছে। আলমগীরের অনিয়ম নিয়ে রাজশাহী ৫ আসনের সংসদের একজন আস্থাভাজন বলেন বিষয় গুলো নিয়ে এম পি সাহেব নিজেও তার উপর সন্তুষ্ট নয়। তার কারনে দুর্গাপুরের প্রবীন আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা ভেঙ্গে পড়েছে।

সংবাদ প্রকাশ করতে গেলে বিভিন্ন সময় গনমাধ্যম কর্মীর উপরে বাজে কথা ও আক্রোশ মুলক কাজ কর্ম করতে মরিয়া হয়ে উঠে, যা গনমাধ্যম কর্মীদের নিকট রেকর্ড রয়েছে। এই আলমগীরের অনিয়মের পেছনে রয়েছে কারা সেটিও স্পষ্ট নয় দুর্গাপুর বাসির নিকট। সে বিভিন্ন সময় রাজশাহী জেলা আওয়ামীলীগের পদধারি নেতা কর্মীদের নাম ও ব্যবহার করে থাকেন বিভিন্ন সময়।