বাগমারায় বিল উন্মুক্ত রাখার দাবিতে মৎস্যজীবী ও এলাকাবাসীর মানববন্ধন

প্রকাশিত: ৫:২৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৪, ২০২০

লিয়াকত,রাজশাহী ব্যুরোঃ রাজশাহীর বাগমারার হাড়িপাড়া বিলের কার্ডধারী গরীর ও অসহায় মৎস্যজীবিদের উচ্ছেদ করে দিয়ে জোরপূর্বক বিলটি দখল করে রেখেছেন এলাকার প্রভাবশালী একটি মহল। বিলটি প্রভাবশালীরা দখলে নেয়ার পর থেকেই জেলেরা ওই বিলে আর মাছ ধরতে পারছেন না। ফলে বিল সংলগ্ন এলাকার কয়েকটি গ্রামের প্রায় ২৫০টি মৎস্যজীবি পরিবারের সদস্যরা এখন চরম মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। এ অবস্থায় প্রভাবশালীদের কবল থেকে বিলটি উদ্ধার করে সকলের জন্য উন্মুক্ত রাখার দাবিতে মানববন্ধন করেছেন এলাকার মৎস্যজীবি পরিবারের সদস্য ও এলাকাবাসী। রবিবার সকাল ১১ টার দিকে অভ্যাগতপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে সড়কের পার্শ্বে দাঁড়িয়ে এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়।
মানববন্ধন শেষে অভ্যাগতপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন অভ্যাগতপাড়া গ্রামের আঃ মালেক এর ছেলে প্রভাষক আঃ জলিল,অভ্যাগতপাড়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মাস্টার দেলোয়ার সরকারের ছেলে মাস্টার আলমগীর হোসেন। আউচপাড়া গ্রামের কার্ডধারী মৎস্যজীবী আজিজুর রহমান প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন আমরা হাড়িপাড়া বিলটি উন্মুক্তের দাবি জানিয়ে ইতি পুর্বে আমরা বাগমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার,উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ও মাননীয় জেলা প্রাশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছি।এ মানববন্ধনের মাধ্যমে আমরা প্রশাসনের কাছে দ্রুত এ সমস্যার সমাধান করে বিলটি উন্মুক্তের দাবী করছি।তা না হলে যে কোন সময় এখানে একটি অপৃতিকর ঘটনার ঘটতে পারে।

বক্তারা অভিযোগ করেন,হাড়িপাড়া বিল সংলগ্ন ১০/১২ টি গ্রামের প্রায় ২৫০টি কার্ডধারী মৎস্যজীবি পরিবার রয়েছে। বাপ-দাদার আমল থেকেই তারা ওই বিলে স্বাধীনভাবে মাছ চাষ ও মাছ শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। কিন্তু সম্প্রতি এলাকার ৫/৭ জন প্রভাবশালী ব্যক্তি ক্ষমতার দাপটে তাদের উচ্ছেদ করে দিয়ে বিলের মধ্যে দিয়ে অবৈধভাবে বাঁশের বানার বেড়া দিয়ে মাছের স্বাভাবিক চলাচল বন্ধ করে দিয়ে বিলটি জবর দখল করে নেয়। এ অবস্থায় বিলে মাছ ধরতে না পারায় বিল সংলগ্ন এলাকার শতশত মৎস্যজীবি পরিবারের সদস্যরা এখন অর্ধাহারে-অনাহারে থেকে চরম মানবেতন জীবন-যাপন করছেন।

এছাড়াও এই বিলের মধ্যে প্রায় অর্ধ শতাধিক কুয়া রয়েছে। এ সব কুয়ায় মৎস্যজীবিরা মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্ত প্রভাবশালীরা ওইসব কুয়াগুলোসহ জোরপূর্বক দখল করে নেয়ায় সেখান থেকেও মৎস্যজীবিরা বঞ্চিত হয়েছেন। কোনো মৎস্যঝীবিকে বর্তমানে ওই বিলে মাছ ধরতে দেয়া হচ্ছে না। কয়েকদিন আগে জীবিকা নির্বাহের তাগিদে মৎস্যজীবি ওই বিলে মাছ ধরতে নামলে তাদের প্রায় ২০/২৫ পাউন্ড জাল ও নৌকা কেড়ে নেয়া হয় এবং তাদের নানা হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে আউচপাড়া গ্রামের মৃত জসিম উদ্দিনের ছেলে আজিজুর রহমান,মৃত কছিম উদ্দিনের ছেলে আলাম,মুনছুর রহমানের ছেলে গাফফার আলী,হাটগাঙ্গোপাড়া গ্রামের মৃত ভোলার ছেলে ফজের আলী,মৃত শেকু মৃধার ছেলে আক্কাস আলী নামে কয়েকজন কার্ডধারী মৎস্যজীবি অভিযোগ করেন।

এবিষয়ে উপজেলা জলমহাল ইজারা কমিটির সভাপতি ও বাগমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরিফ আহম্মেদ বলেন এলাকার গরীব ও অসহায় মৎস্যজীবিদের কথা বিবেচনা করে বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে।