চট্রগ্রামে মানবপাচারকারী আটক

প্রকাশিত: ১:৫২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১২, ২০২০

মোঃ আল আমিন হোসেন ষ্টাফ রিপোর্টারঃ

 

বাংলাদেশ থেকে বিদেশে জনশক্তি পাঠানোর প্রক্রিয়াটা দালালনির্ভর। তবে তাদের দৌরাত্ম্য যে কতটা প্রকট, তা বেরিয়ে এসেছে এক গবেষণায়। এতে দেখা গেছে, ভিসা কেনাবেচা আর ধাপে ধাপে দালালদের কারণে ৩ থেকে ১২ লাখ টাকা পর্যন্ত খরচ করতে হচ্ছে বিদেশগামীদের।

কম্বোডিয়ায় চাকরি দেওয়ার নাম করে সেখানে লোক পাঠিয়ে পরে তাদেরকে সেখানে জিম্মি করে টাকা আদায় ও পরে স্ট্যাম্পে সই নেওয়ার অভিযোগে ইফতেখার আহমেদ খান প্রকাশ রনি একজনকে গ্রেফতার করেছে অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

 

বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) তাকে গ্রেফতার করা হয়।

 

গ্রেফতার ইফতেখার আহমেদ খান প্রকাশ রনি মিরসরাই উপজেলার মঘাদিয়া এলাকার সালেহ আহমদ খানের ছেলে।

দুইজন ভুক্তভোগী খুলশী থানায় মামলা দায়েরের পর ইফতেখার আহমেদ খান প্রকাশ রনিকে গ্রেফতার করে সিআইডি।

 

সিআইডি চট্টগ্রামের বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ খালেদ বলেন, ইফতেখার আহমেদ খান প্রকাশ রনিসহ একটি চক্র চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে কম্বোডিয়ায় মানবপাচার করে আসছে। যুবকদের টার্গেট করে তাদের কম্বোডিয়ায় নিয়ে সেখানে জিম্মি করে টাকা আদায় করে চক্রটি।

 

ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে খালি স্ট্যাম্পে সই নিয়ে পাসপোর্ট ও অন্যান্য ডকুমেন্ট ফেরত দিয়ে বাংলাদেশে ফেরত পাঠায়।

 

সিআইডি ইন্সপেক্টর মুহাম্মদ শরীফ বলেন আসামীকে কৌশলে বিদেশে যাব বলে তিনদিন অপেক্ষার পর ধৃত করতে সক্ষম হই।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৩ টা থেকে অপেক্ষা করার পর রাত ১০ টার দিকে- আটক করতে সক্ষম হই।

 

মানবপাচারকারী আটকের অভিযানে ইন্সপেক্টর মুহাম্মদ শরীফ,ইন্সপেক্টর লিটন দেওয়ান, ইন্সপেক্টর মুজাহিদ,এসআই-শাহাদাৎ হোসেন,এসআই-জাহাঙীর, এসআই,দেব দুলাল অংশ গ্রহন করেন।

 

জৈনিক রফিক ও ওমর ফারুক সহ আরো ১০/১৫ জন ভুক্তভোগী এক সপ্তাহ আগে সিআইডি চট্রগ্রামকে অভিযোগ দিলে ইন্সপেক্টর মুহাম্মদ শরীফও সিআইডি চট্রগ্রাম টিম ছায়া তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে গতকাল অভিযান চালিয়ে আসামী ইফতেখারকে গ্রেফতার করেন।

 

মোঃ আল আমিন হোসেন

চট্টগ্রাম জেলা

০১৯০৪৩১২০৬৭