চাঁদাবাজির অভিযোগে হোয়ানক ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আরমান গনধোলাইয়ের শিকার

প্রকাশিত: ১১:১৩ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৪, ২০২০

ইঞ্জিনিয়ার হাফিজুর রহমান খান::

মহেশখালী উপজেলার হোয়ানক ইউনিয়নের ছনখোলা পাড়া গ্রামে এলজিডি ৯৪ লক্ষ টাকার একটি সড়কের কাজে এমপি সাহেবের নাম ভাঙ্গিয়ে ঠিকাদারের থেকে ১ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করায় কাজে বাঁধা দেয়ার অপরাধে স্থানীয় এলাকাবাসীর গনধোলাইয়ের শিকার হন হোয়ানক ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সভাপতি আরমান এম রহামান।

 

এ ঘটনাটি ঘটে গতকাল ৩ সেপ্টেম্বর বিকাল ৫টার সময় ছাত্রলীগের সভাপতি আরমানের নিজ গ্রাম ছনখোলা পাড়ায়।

পরে সন্ধ্যায় আরমানের খুজে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসলে আরমান পালিয়ে যায় ৷ পুলিশ আরমানকে ফাড়িতে দেখা করতে বলে লোকজনকে বলে যায় ৷

 

সুত্রে প্রকাশ, মহেশখালী রুপা এন্টার প্রাইজ এর স্বত্তাধিকারী ঠিকাদার মোহাম্মদ বাদশার ম্যানেজার শফি আলম জানান, ছনখোলা পাড়ায় সড়কের ৯৪ লক্ষ টাকার আমাদের একটি কাজ চলছে, এতে হোয়ানক ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আরমান এম রহমান প্রায় সময় এসে ১লক্ষ টাকা দাবী করে আসছিল। গত সপ্তাহে এসে ৩/৪ দিনের মধ্যে উক্ত টাকা পরিশোধ করতে সময় বেধে দিয়ে চলে যায়। আমরা থানায় অভিযোগ এজাহার দাখিল করতেছি ৷

 

আমাদের সংবাদ মাধ্যম ঠিকাদার থেকে জিজ্ঞাসা করলে বলে, নাকি আপনারা রাস্তার কাজে অনিয়ম করছেন সেজন্যে তারা বাধা দিছে? প্রশ্নের জবাবে ঠিকাদার বলেন, দেখেন বিষয়টি এরকম না ৷ কক্সবাজার প্রকৌশল অধিদপ্তরের এক্সিন কতৃপক্ষকের রাস্তার কাজে অনিয়ম আছে কিনা চুল ছেড়া বিশ্লেষনে আমাদের বিল হয় ৷ আমাদের কাজ শেষের দিকে ৷ একটা সামান্য ভুলের কারণে আমরা বিল পায়নি ৷ পরে সে কাজটি সম্পুর্ণ করে আমরা বিল পেয়েছিলাম ৷ এখানে অনিয়ম করার কোন সুযোগ নেই ৷ শেখ হাসিনার বাংলাদেশে ঘোষ দিয়ে রাস্তার বিল তুলে নেওয়া এখনকার সময়ে স্বপ্ন ছাড়া কিছু নই ৷

 

স্থানীয় মুক্তিযুদ্ধা জমির সাহেব বলেন, আমরা কিজন্যে দেশ স্বাধীন করছি ? আওয়ামীলীগ এর সহযোগি সংগঠনগুলো কার হাতে ? এসব শুনলে আমাদের খারাপ লাগে ৷ শুনছি জেলা-উপজেলা থেকে কমিটি আনতে লাখ টাকা খরচ করে কমিটি এনে টাকাগুলো তুলতে মরিয়া হয়ে যায় কথিত এসব ছাত্রলীগ নামদারি ব্যক্তিগুলো ৷

 

ঘটনা স্থলে থাকা টিকাদার সহকারী বলেন, গত কাল এসে উক্ত চাঁদার ১ লক্ষ টাকা দাবী করে আসছিল। টাকা না পাওয়ায় এক পর্যায়ে কাজ বন্ধ রাখে এবং শ্রমিক দের মারধর করলে এতে স্থানীয়রা ক্ষিপ্ত হয়ে এগিয়ে এসে আরমান কে মারধর করে আমাদের ছাড়িয়ে নেই ৷ পরে পুলিশ আসার খবর পয়ে আরমান চলে যায় ৷

 

হোয়ানক পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এসআই শফিউল আমাদের বলেন, ঘটনাটি শুনে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত হয় ৷ পুলিশ আজ শুক্রবার এ নিয়ে উভয় পক্ষকে বৈঠকে বসার সময় দেয়া হয়।